Increase Youtube Subscriber

কিভাবে আপনার ইউটিউব সাবস্ক্রাইবার দ্বিগুণ করবেন?

প্রতি মিনিটে, ৩০০ ঘণ্টার বেশি ভিডিও ইউটিউবে আপলোড হচ্ছে। এতো প্রতিযোগিতার মধ্যে আপনি নিশ্চয়ই নিজেকে গণনার বাহিরে রেখেছেন এবং মেনে নিয়েছেন যে এই প্লাটফর্মে খ্যাতি অর্জন করা খুবই কঠিন। কিন্তু, আপনি কি কোন ভুল করছেন? কেমন হবে যদি আপনি সব প্রতিযোগীতাকে পিছনে ফেলে ইউটিউবে জনপ্রিয় হয়ে যান?

ইউটিউবে জনপ্রিয়তা নির্ধারণের অন্যতম উপায় হল এই জনপ্রিয় সামাজিক মাধ্যমে আপনার কতজন সাবস্ক্রাইবার আছে তা দেখা। আপনার যতবেশি সাবস্ক্রাইবার থাকবে, আপনার ভিডিওগুলিতে ধারাবাহিকভাবে ততোবেশি ভিউ অর্জন করতে পারবে।

ইউটিউবে যারা ভিডিও আপলোড করেন, তাদের মধ্যে অনেকেই সাবস্ক্রাইবার বৃদ্ধির জন্যে কোন কৌশল অবলম্বন করেন না। অথচ কৌশলটা এখানেই! যদি আপনি সাবস্ক্রাইবার বৃদ্ধির জন্য কৌশল তৈরি করতে পারেন, তাহলে আপনিও সেসকল কোম্পানির মত হতে পারবেন যারা ইউটিউবে সফলতা অর্জন করছেন।

এই পোস্টে, আমরা দেখবো কিভাবে আপনি আপনার ইউটিউব সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা বাড়াতে পারবেন। আমরা বিভিন্ন মিডিয়া মার্কেটিং কৌশল বিশ্লেষণ করবো এবং কিভাবে আপনি তাদের বাস্তবায়ন করতে পারবেন তার উপর ফোকাস করবো।

শেষ পর্যন্ত আপনার একটি ভাল ধারনা হবে যে কিভাবে কিছু কৌশল তৈরি করা যায়, যা ইউটিউব এর মাধ্যমে আপনার ব্যবসার প্রসার ঘটাবে।

তাহলে শুরু করা যাক।

চ্যানেল –এর একটি থিম দিন

কোনকিছু শুরু করার আগে চ্যানেল এর জন্য একটি থিম বা বিষয়বস্তু দরকার। শীর্ষ কিছু ইউটিউব চ্যানেল দেখলে দেখা যাবে যে, তাদের অধিকাংশই একটি নির্দিষ্ট থিম নিয়ে কাজ করে।

ডেরেক হেল্পের্ন –এর চ্যানেলটি উদাহরণ হিসেবে দেখুন।

দেখেছেন, কিভাবে প্রায় ভিডিওগুলি ব্যবসা এবং সাফল্যের সাথে সম্পর্কিত কিছু নির্দিষ্ট বিষয় নিয়ে তৈরি করা হয়েছে। একটি থিম থাকলে আপনার পরবর্তী সকল প্রচেষ্টা কন্টেন্ট তৈরিতে পরিচালিত করতে পারবেন।

তাহলে, যদি আপনার চ্যানেলের একটি থিম থাকে, তাহলে থিমের সাথে সম্পর্কিত কন্টেন্টের জন্যে এটিই হবে নির্দিষ্ট জায়গা। আপনার চ্যানেল যদি একটি নির্দিষ্ট নিস সরবরাহ করে, তাহলে সেই নিস সম্পর্কে গভীরভাবে চিন্তা করে বা তার উপর কাজ করে এমন ব্যক্তিরা নিশ্চই আপনার চ্যানেলের  সাবস্ক্রাইবার হবেন। এভাবে, যখনই আপনি একটি নতুন ভিডিও পোস্ট করবেন, তখন তারা তাদের আগ্রহের বিষয় সম্পর্কে কিছু নতুন কিছু শিখবে – সুতরাং, তারা যে বিষয় নিয়ে উৎসাহ বোধ করে তা সম্পর্কে আরও জানতে সক্ষম হবে।

উদাহরণ হিসেবে, চিন্তা করুন যে আপনার ভিডিওগুলি সব ফেসবুক মার্কেটিং বিষয়ক এবং আপনার লক্ষ্য ব্যবসায়ীদের সাহায্য করা। যদি কোনো ব্যবসায়ী ফেইসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে শিখতে চান এবং আপনার চ্যানেলের সাবস্ক্রাইব করেন, তবে তারা ফেসবুক মার্কেটিং নিয়ে আপনার পোস্টের তাৎক্ষনিক আপডেট পাবেন। এটি তাদেরকে কম পরিশ্রমে অন্যদের থেকে এগিয়ে থাকার সুযোগ করে দেয়।

আপনি যদি থিম বের করতে হিমশিম খান তাহলে চিন্তা করুন আপনার ব্যবসা কিভাবে সমস্যা সমাধান করছে এবং কার জন্যে করছে।  তারপর সেসব বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করুন।

অসাধারন কন্টেন্ট পোস্ট করুন

৭০% মার্কেটইয়ার রিপোর্ট করেছেন যে, ভিডিও অন্য ধরনের মিডিয়ার তুলনায় ভাল কাজ করে থাকে। আপনি যদি এইরকম ফলাফল চান, তাহলে আপনার মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের জন্যে অসাধারন কন্টেন্ট তৈরি করতে শিখতে হবে। প্লাস, আপনি যদি অসাধারন কন্টেন্ট তৈরি করতে পারেন, তাহলে আপনার সাবস্ক্রাইবার বৃদ্ধির জন্যে অনেক কাজ সম্পন্ন করা সহজ হয়ে যাবে।

যখন কেউ আপনার চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করে, তখন মূলত তারা প্রতিটি নতুন কন্টেন্টের আপডেট পেতে সাইন আপ করে। আপনার কন্টেন্ট যদি ভাল হয়, তাহলে আপনার কাছ থেকে আবারও শুনতে কেউ আপত্তি করবে না। কারণ আপনার এবং আপনার কন্টেন্টের সাথে প্রাথমিক ইন্টারঅ্যাকশনটি ইতিবাচক ছিল।

মনে রাখবেন যে মানুষ ভাল কন্টেন্ট দেখতে সময় বের করে নেয়। ৭৫% বিজনেস এক্সিকিউটিভ প্রতি সপ্তাহে কাজের সাথে সম্পর্কিত ভিডিও দেখেন। এটি আপনার মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের জন্য একটি ভাল ভিত্তি যা সামাজিক নেটওয়ার্কগুলি প্রসারিত করবে। ৫৪% সিনিয়র এক্সিকিউটিভ তাদের সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে কন্টেন্ট শেয়ার করে থাকেন। সুতরাং আপনার কন্টেন্ট যদি সত্যিই ভাল হয়, তাহলে আপনি এর থেকে উপকৃত হবেন।

তবে মনে রাখতে হবে আপনার ভিডিওগুলি ভাল হলেও, আপনাকে সাবস্ক্রাইব করানোর জন্য তাদেরকে স্মরণ করিয়ে দিতে হবে – আর কাজটা খুব সহজ না

সুতরাং, কিভাবে আপনি অসাধারন কন্টেন্ট তৈরি করবেন? ভাল মানের  কন্টেন্ট তৈরি করতে হলে, আপনার টার্গেট মার্কেট / শ্রোতাদের জন্য প্রাসঙ্গিক বিষয়বস্তু উৎপাদনের উপর মনোযোগ দিতে হবে। যদি পূর্বে উল্লিখিত একটি থিমের সাথে আপনি কাজ করেন, তবে মূল্যবান কন্টেন্ট উৎপাদনের উপায় বের করা কঠিন হবে না। ধরা যাক যে আপনি এমন একটি চ্যানেল তৈরি করতে চান যা ‘পেন্সিল ড্রয়িং’ বিষয় নিয়ে কাজ করবে। ইউটিউব সার্চ ইঞ্জিনে ‘পেন্সিল ড্রয়িং’ এর বিস্তৃত কীওয়ার্ড টাইপ করা একটি উপায় হতে পারে ধারনা নেয়ার জন্যে।

প্রতি মাসে ইউটিউবে প্রায় ৩ বিলিয়ন অনুসন্ধান পরিচালনা করা হয়। সুতরাং এখানে কিছু প্রাসঙ্গিক তথ্য থাকবেই।

আমরা যখনই কীওয়ার্ড টাইপ করি, আমরা উপরের পরামর্শগুলি (সাজেশন) দেখতে পাই।

এখন, বিষয়গুলি সামান্য বিস্তৃত বলে মনে হতে পারে, আপনি সেসব কীওয়ার্ডগুলির মধ্যে একটি বেছে নিতে পারেন, আবার একই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে পারেন যাতে আরো যথাযথ কিছু তৈরি করতে পারেন।

উদাহরণস্বরূপ, ‘টিউটোরিয়াল’ শব্দটি যোগ করুন।

টিউটোরিয়াল শব্দটি যোগ করে আমরা এখন আরো কিছু যথাযথ কীওয়ার্ড পেয়েছি।

যদি আমরা একটি নির্দিষ্ট নিসের জন্য কন্টেন্ট উৎপাদন করতে চাই, এই টেকনিক আমাদের জানাবে যে কি ধরণের বিষয়বস্তু মানুষ ইতিমধ্যে দেখার জন্যে আগ্রহ জানাচ্ছে।

আপনি কিছু বিষয়বস্তু ধারনা নেয়ার জন্যে গুগল কীওয়ার্ড টুল ব্যবহার করতে পারেন। কারণ গুগল অনুসন্ধান ফলাফল এবং ইউটিউব অনুসন্ধান ফলাফলগুলির মধ্যে কিছু সঙ্গতি থাকবে।

ইউটিউবও পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সার্চ ইঞ্জিনগুলির মধ্যে একটি – যদি কোনও ভিডিও খুঁজে পেতে চান তবে তাদের এটি এখানেই অনুসন্ধান করতে হবে।

‘পেন্সিল ড্রয়িং’ বিষয়টি নিয়েই আগানো যাক।

‘ইওর প্রোডাক্ট অর সারভিস’ বাক্সে, আপনার ব্যবসার উপর ভিত্তি করে একটি কীওয়ার্ড লিখুন। যদি আমি এমন একটি ব্যবসা চালাতাম যা মানুষকে পেন্সিল ড্রয়িং করতে শিখাবে, তবে আমি দিতাম ‘হাও টু ডু পেন্সিল ড্রয়িং’।

এই পর্যায়ে শব্দটি বড় রাখা উচিত, কারণ এটি কীওয়ার্ড টুলকে সাহায্য করবে বিস্তৃত ধারনা নিয়ে আসতে।

একবার আপনি কীওয়ার্ড প্রবেশ করানোর পর আপনি এই পৃষ্ঠাটি দেখতে পাবেন। এটি কীওয়ার্ডের বেশ কিছু ‘বিজ্ঞাপন গোষ্ঠী’ দেখায়।

কীওয়ার্ডের প্রতিটি গ্রুপ একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে কেন্দ্রিক।

আপনি দেখতে পারেন, আমি ‘গড় মাসিক অনুসন্ধান’ এবং নিম্নমুখী সাজানো ক্রম অনুযায়ী গ্রুপ ব্যবস্থা করেছি । এটি আমাদের দেখাবে যে প্রতিযোগিতা কোথায় বেশি হতে পারে

আসুন ‘ড্রয়িং টেকনিক্স’ নামে মধ্যম পরিসীমা গ্রুপে ক্লিক করা যাক।

আমি কয়েকটি কীওয়ার্ড তুলে ধরেছি যা ভাল ইউটিউব বিষয়বস্তুর সুযোগ উপস্থাপন করতে পারে। আমি এই কীওয়ার্ডগুলি বেছে নিয়েছি কারণ এগুলিকে কেন্দ্র করে পরিষ্কার, উচ্চ মানের ভিডিও তৈরি করা যাবে। একটি ইউটিউব চ্যানেল পরিচর্যা করা উচিত, যাতে অবশেষে প্রচুর সংখ্যক সাবস্ক্রাইবার হয়। এর জন্যে প্রায়ই প্রয়োজন হয় প্রচুর কন্টেন্ট পোস্ট করার ।

যদি আপনি এটি করতে চান, তবে কন্টেন্ট প্রাসঙ্গিক রাখতে হবে এবং যতটা সম্ভব বিষয়বস্তুটি নির্দিষ্ট দিকে রাখতে সক্ষম হবে, যাতে প্রতিটি ভিডিও দর্শকদের নতুন কিছু শিখতে দেয়। এবং নির্দিষ্ট ধরনের কন্টেন্ট হলে সাধারনতই প্রতি মাসে অনুসন্ধান স্তর নিচে যেতে থাকবে। প্লাস, এমনকি যদি আপনি কম ভলিউম কীওয়ার্ডগুলিতে ফোকাস করেন তবে তারা সবাইকে একসঙ্গে একত্রিত করতে সহায়তা করবে যাতে আপনি গতিশীলতা বজায় রাখতে পারেন এবং ইউটিউব নিশ-এ নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শুধুমাত্র ৯% ব্যবসায়ী ইউটিউব ব্যবহার করেন, তাই আপনি যদি ব্যবসায়িক কন্টেন্ট তৈরি করতে চান, তাহলে একটি মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম তৈরির এটি একটি বড় সুযোগ উপস্থাপন করে যা আপনার টার্গেট অডিয়েন্সকে আকৃষ্ট করে। উদাহরণস্বরূপ, দেখুন কি হয় যখন আমি ‘সিম্পল ড্রয়িং টেকনিক’ কীওয়ার্ড টাইপ করি।

সেখানে একটি প্লেলিস্ট আছে, কিন্তু সম্পূর্ণরূপে অপ্টিমাইজড করা শিরোনাম, বা এমনকি ভিডিওগুলিও “সিম্পল ড্রয়িং টেকনিক” বিষয়বস্তুর উপর ভিত্তি করা নয়।

আপনার ভিডিও মান উন্নত করতে পারে প্রোডাকশন কোয়ালিটি।

নির্দিষ্ট অর্থে, এর অগ্রাধিকার এখনো বেশ কম। যখন ভিডিওগুলি রিটার্ন আনতে শুরু করবে, তখন আপনি উৎপাদন মানের উপর আরও মনোযোগ দিতে পারেন। এখানে কিছু উপদেশ আছেঃ

  • আপনি যেটা বলছেন তা সহজেই বোঝা যাচ্ছে কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে অবশ্যই। স্পষ্ট এবং উত্সাহীভাবে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ। আপনাকে আপনার কথা পৌঁছে দিতে হবে। অন্যথায়, আপনি যা বলছেন তা মানুষ বুঝতে সক্ষম হবে না।
  • আপনাকে মিশুক ব্যবহার করতে হবে এবং একঘেয়ে হওয়া থেকে বিরত থাকুন।
  • যদি আপনি একটি ফোন বা একটি ল্যাপটপ ব্যবহার করে রেকর্ডিং করেন, সেই মাইক্রোফোন যথেষ্ট নাও হতে পারে। সুতরাং, আপনি একটি মানসম্মত মাইক্রোফোনে বিনিয়োগ করুন।

আপনি যা রেকর্ডিং করছেন তা যেন দেখতে সহজ হয় এটি নিশ্চিত করতে হবে।  

কি ঘটছে তা বুঝা আপনার দর্শকদের যেন কঠিন কাজ মনে না হয়।

এর মানে সবসময় যথেষ্ট আলো নিশ্চিত করতে হবে। আপনি যদি একটি টকিং হেড স্টাইল ভিডিও রেকর্ডিং করেন, যেখানে আপনি ক্যামেরায় কথা বলছেন, নিশ্চিত করুন যে আপনার মুখ স্পষ্টভাবে দেখা যাচ্ছে। কেউ আপনাকে রেকর্ডিং করলে, নিশ্চিত করুন যে ক্যামেরা যেন না কেঁপে ওঠে। আপনি যদি আপনার ল্যাপটপ স্ক্রিন রেকর্ডিং করেন, তাহলে নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনার সকল কাজ স্পষ্টভাবে দেখা যাচ্ছে এবং আপনি যা টাইপ করছেন সেটি পড়া যাচ্ছে।

ভিডিও এডিটিং -এর জন্যে কয়েকটি সমাধান রয়েছে।

ভিডিও এডিটিং সম্পর্কে যা বলতে চাই তা হল ভিডিওগুলির ধরন উন্নত করতে হবে। যেখানে এডিটিং কাজে আসতে পারে, তা হলো, যখন আপনার ভিডিওর অংশ কাট করতে হবে অথবা একটি টাইটেল স্ক্রিন যুক্ত করতে হবে। আপনি যদি নিখুঁত ভিডিও এডিটর না হন, আপনি আপওয়ার্ক বা এমনকি ফাইভার থেকে কাউকে নিতে পারেন। বিকল্পভাবে, আপনি একটি ভিডিও এডিটিং স্যুট কিনে নিজে শিখে কাজ করতে পারেন। এই পদ্ধতিতে অর্থ সঞ্চয় হতে পারে, তবে ভিডিও এডিটিং শিখতে আরো অনেক সময় ব্যয় করতে হবে, যা আপনার মিডিয়া মার্কেটিং থেকে সময় নিয়ে নিবে। আপনার পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে, এটি শ্রেষ্ঠ উপায় নাও হতে পারে।

ভাল কন্টেন্ট পোস্ট করার আরেকটি উপায় হতে পারে, আপনার পণ্য ব্যবহৃত হচ্ছে এমন কিছু ভিডিও তৈরি করা। এমনকি আপনার ব্লগের কিছু পোস্ট নিয়ে ভিডিও বানাতে পারেন। ৫৯% এক্সিকিউটিভ লেখার পরিবর্তে একটি ভিডিও দেখতে বেশি আগ্রহী। তাহলে এটি হচ্ছে অবিশ্বাস্য কন্টেন্ট তৈরির মূলসূত্র। পরের পয়েন্টটি অপরিহার্য হতে যাচ্ছে যদি আপনি এটি নিশ্চিত করতে চান যে আপনার সাবস্ক্রাইবার ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

ধারাবাহিকভাবে পোস্ট করুন

এটি সম্ভবত ইউটিউব ফলোইং বৃদ্ধির সবচেয়ে কঠিন অংশ – যদিও এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। বিটুবি কোম্পানির ৯৬% পরবর্তী বছর থেকে ভিডিও মার্কেটিং ব্যবহার করার পরিকল্পনা করছে। ধারাবাহিকভাবে কন্টেন্ট পোস্টিং, প্রতিযোগিতার জন্য একটি দুর্দান্ত উপায়। যদি আপনি ক্রমাগত নতুন কন্টেন্ট পোস্ট করেন, তাহলে দর্শকদের সাবস্ক্রাইবার হওয়ার এবং তাদের সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে পোস্ট করার একটি কারণ থাকবে। আপনি যদি কোনো কন্টেন্ট পোস্ট না করেন, তাহলে দর্শকরা সাবস্ক্রাইব করতে চাইবে না – কেন করবে?

আপনি পূর্বে উল্লিখিত টিপস ব্যবহার করলে নতুন কন্টেন্ট পোস্ট করা কঠিন হবে না। আপনার শুধু একটি সময়সূচী তৈরি করে তা মেনে চলতে হবে।

কত বার পোস্ট করা উচিত?

আপনি যদি জিনিষগুলি সহজ রাখতে চান, তাহলে আপনার প্রতিযোগিরা কী করছে তা দেখুন এবং তাদের থেকে এক ধাপ এগিয়ে থাকুন। তবে, সর্বোত্তম পরিকল্পনা হল যেটি আপনি দৃঢ় ভাবে করতে পারবেন। সুতরাং, কেবল একটি সময়সূচী তৈরি করুন যা আপনি দৃঢ় ভাবে পালন করবেন, যে কোনও ভাবেই। এটি গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি আপনার ক্ষমতার সবকিছু দিয়ে সময়সূচী মেনে চলবেন।

মিডিয়া মার্কেটিং-এ সামঞ্জস্য গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি বিদ্যমান গ্রাহকদের ফিরিয়ে আনে। এতে ভিউ-এর সংখ্যা বাড়বে এবং ভিডিও-এর সাথে সাবস্ক্রাইবারদের এংগেজমেন্ট বাড়বে।

ভিডিও এর সাথে এংগেজমেন্ট নিম্নলিখিত ভাবে হয়:

  • থাম্বস আপ বা থাম্বস ডাউন
  • সামাজিক মাধ্যমে শেয়ারইং
  • সাবস্ক্রাইব করা
  • মন্তব্য করা
  • ফেভরিট করা

আপনি অবশ্যই চাইবেন সোশ্যাল মিডিয়া সাইটের মাধ্যমে এই প্রতিটি বিভাগে অংশগ্রহণের মাত্রা বাড়াতে। লোকেরা ইউটিউব-এ বিষয়বস্তুর সাথে এঙ্গেজ হতে পছন্দ করে এবং আপনি কি জানেন যে প্রতি সপ্তাহে ১০০ মিলিয়ন লোক ইউটিউবে্র বিষয়বস্তুর উপর ‘সোশ্যাল একশান’ গ্রহণ করে? আপনি আরও অবাক হবেন যে, ৯২% মোবাইল ভিডিও দর্শকরা অন্যদের সাথে কন্টেন্ট শেয়ার করে। এটি অরগানিক সামাজিক মিডিয়া মার্কেটিং।

আরেকটি মস্তিষ্ক ধাঁধানো সত্য হল প্রতি মিনিটে ৭০০ ভিডিও টুইটারে শেয়ার করা হয়। সুতরাং যদিও ইউটিউব কোন সোশ্যাল মিডিয়া সাইট নয়, এটি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং প্ল্যাটফর্মের জন্য একটি মূল্যবান অস্ত্র। অধিক এংগেজমেন্ট ইউটিউব অনুসন্ধান ইঞ্জিনে ভিডিওটিকে আরও দৃশ্যমান করতে সহায়তা করবে।

পোস্ট করার জন্য ধারাবাহিকভাবে কম্পিউটারের সামনে থাকতে হবে না। আপনি ইউটিউবের প্রদত্ত শেডিউলিং ফিচার ব্যবহার করতে পারেন। এই ফিচারটিতে অ্যাক্সেস পেতে, আপনাকে প্রথমে আপনার ভিডিওগুলির জন্য মনেটাইজেশন চালু করতে হবে। এর মানে হল যে আপনি আপনার ভিডিওগুলিতে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে ইচ্ছুক।

আপনি যদি আপনার ভিডিওগুলিতে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে না চান, তাহলে চিন্তা করবেন না। কোন ভিডিওগুলি মনেটাইজ করা হবে এবং কোনটি হবে না সেটার নিয়ন্ত্রণ আপনার কাছেই থাকবে।

আসুন দেখি কিভাবে এটি আপনি করতে পারেন। একটি ইউটিউব অ্যাকাউন্টের জন্য সাইন আপ করুন এবং তারপর ‘ক্রিয়েটরস স্টুডিও’ বিভাগে যান। তারপর, বাম পাশের বারে ‘চ্যানেল’ অপশনের অধীনে ‘ মনেটাইজেশন’ নির্বাচন করুন।

তারপর ‘এনাবেল মাই অ্যাকাউন্ট’ নির্বাচন করুন।

এটি সম্পন্ন করার পরে, আপনি আপনার মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম প্রোগ্রাম করার জন্য ইউটিউব এর টাইম শেডিউলিং ফিচার অ্যাক্সেস করতে পারবেন। আপনি অ্যানালিটিক্সের আরও অনেক কিছু অ্যাক্সেস করতে পারবেন। যদি একটি ভিডিও নির্ধারণ করতে চান তবে ‘আপলোড’ বোতামটি ক্লিক করুন।

তারপর ড্রপডাউন মেনুতে ক্লিক করুন এবং ‘ শেডিউলড’ অপশন নির্বাচন করুন।

তারপর আপনার ভিডিওটি ড্র্যাগ এবং ড্রপ করুন, অথবা এটি আপলোড করতে আইকনে ক্লিক করুন। পরবর্তী স্ক্রিনে, আপনি সময়সূচী সামঞ্জস্য করার অপশন পাবেন।

এখন আপনি যখন ভিডিওটি লাইভ করতে চান সেই তারিখ ও সময়টিতে প্রবেশ করাতে হবে। ভিডিওটি লাইভ হয়ে গেলে তারা একটি বার্তা পাবেন সাবস্ক্রাইবাররা। এছাড়াও, আপনার সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্ট প্ল্যাটফর্মের সাথে শেডিউলিং করার চিন্তাও ভাল।

এটি নিশ্চিত করবে যে টুইট, ফেসবুক আপডেট এবং লিঙ্কডইন পোস্টগুলি ভিডিও আপলোডের সাথে সিঙ্কক্রোনাইসড ভাবে পাঠানো হয়েছে। যদি আপনার কোনও ইমেল তালিকা আপনার ভিডিওর জন্য প্রাসঙ্গিক হয়, তাহলে আপনি হয়তো সেইসব লোককেও একটি বার্তা পাঠাতে চাইবেন। বার্তাগুলি ভিডিও খোলার হার ১৯% বাড়িয়ে দেয়।

আপনি একযোগে একাধিক প্ল্যাটফর্মে মানুষকে একসাথে বার্তা না দিয়ে বার্তাগুলিকে ভাগ করতে পারেন। দৈনিক নতুন কন্টেন্ট তৈরি করা কষ্টের মনে হলে, আপনি বড় ভিডিওগুলো ভেঙ্গে বিভক্ত করে আপলোড করতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনার প্রতিটি দীর্ঘ ভিডিওতে আপনি বিভিন্ন বিষয় কভার করতে যাচ্ছেন।

আপনি কিছু বিষয় এডিট এবং তারপর মিনি ভিডিও তৈরি করতে পারেন। সামাজিক নেটওয়ার্ক শেয়ার করার জন্য ছোট ভিডিওগুলি আরও সুবিধাজনক। আপনি লক্ষ্য করবেন যে ‘ইনসাইড কোয়েস্ট’ চ্যানেলে এরকম অনেক করে। এখানে তাদের চ্যানেলে ভিডিওগুলির একটি। নোট করুন কিভাবে এটি প্রায় ৪৯ মিনিট দীর্ঘ।

যদিও ইউটিউবের গড় মোবাইল সেশন 40 মিনিট, এ বিষয়ে কেউ নতুন হলে, তার কাসে সম্ভবত বিষয়টা ভয়ঙ্কর হতে পারে।

উল্লেখ্য এই ভিডিওগুলির প্রতিটি ছোট। ৫৯% মানুষ শেষ পর্যন্ত একটি ভিডিও দেখবে, যদি এটি এক মিনিটের নিচে থাকে।

ছোট ভিডিওগুলি আপনার চ্যানেলকে মানুষের কাছে পরিচিত করার একটি দুর্দান্ত উপায় হতে পারে, এগুলো আপনার কন্টেন্টের স্বাদ প্রদান করে এবং আপনার মিডিয়া মার্কেটিং তৈরি করে দেয়।  ৭৮% লোক প্রতি সপ্তাহে ভিডিওগুলি অনলাইনে দেখে, তাই এটি একটি ভাল সুযোগ যে তারা আপনার জিনিস দেখতে ফিরে আসবে, যদি এটি ভাল হয়।

কিছু এভারগ্রীন ভিডিও তৈরি করুন

ধারাবাহিকভাবে সাবস্ক্রাইবার তৈরি করার দুর্দান্ত উপায় হল কিছু এভারগ্রীন ভিডিও তৈরি করা। মূলত ভিডিওগুলি এমন হবে যা বর্তমানে বা ৫ বছর পরেও দেখা যেতে পারে। এটি অন্যদের তুলনায় কিছু নিশ-এ প্রযোজ্য হবে। উদাহরণস্বরূপ, আমি আগেই পেন্সিল ড্রয়িং ব্যবসার কথা বলছিলাম এবং স্বাভাবিকভাবেই এর কন্টেন্ট গুলি এভারগ্রীন।

‘কিভাবে করা যায়’ জাতীয় কন্টেন্ট এভারগ্রীন হতে পারে। সুতরাং, আপনার নিশ দেখুন এবং দেখুন আপনি কিছু ‘কীভাবে করা যায়’ ভিডিও তৈরি করতে পারেন কিনা যা সময়ের পরীক্ষায় সব সময় টিকে থাকবে। এমনকি যদি আপনি এভারগ্রীন ভিডিও তৈরি করতে নাও চান, তাও চেষ্টা করুন ‘কীভাবে করা যায়’ জাতীয় ভিডিও তৈরি করতে। কারণ  বছরে ৭০% এর বেশি সোশ্যাল মিডিয়া সাইট এবং সরাসরি ইউটিউবে এই জাতীয় ভিডিওগুলি দেখা হয়ে থাকে।

২০১৫ সালের প্রথম চার মাসে শুধু ‘কীভাবে করা যায়’ এই ধরনের ভিডিও দেখা হয়েছে ১০০ মিলিয়ন ঘণ্টা – এই ধরণের কন্টেন্টের চাহিদা প্রচুর। আপনার ভিডিওগুলিতে আসলেই ক্লিক করতে বাধ্য করুন

একবছর আগের তুলনায় বর্তমানে ৮০% এর বেশি সিনিয়র এক্সিকিউটিভ এখন অনলাইন ভিডিও দেখেন। সুতরাং আপনার চ্যানেলে গ্রাহক হতে হলে প্রথমে আপনার ভিডিও তাদের সামনে তুলে ধরতে হবে এবং তাতে ক্লিক করাতে হবে। সুতরাং কিভাবে আপনি মানুষকে আপনার ভিডিওর প্রতি মনোযোগ দেয়াবেন এবং আপনার ভিডিওতে ক্লিক করাবেন?

তিনটি বিষয় যা আপনাকে ফোকাস করতে হবে – চিত্র, শিরোনাম এবং বিবরণ।

আপনার ভিডিওগুলিতে ক্লিক করার জন্য ইউটিউব ব্যবহারকারীদের প্রভাবিত করার জন্য এই তিনটি উপাদানের সবচেয়ে বড় প্রভাব থাকবে। নিশ্চিত করুন যে মেটা ট্যাগটি প্রাসঙ্গিক এবং কী পয়েন্ট অন্তর্ভুক্ত। এটি ইউটিউব সার্চ ইঞ্জিনে আপনার র্র‍্যংকিংয়ে সাহায্য করবে। এটি ভিডিওগুলির উপর ক্লিক করতে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করার জন্য ব্যবহারকারীদের প্রলোভিত করবে। ঠিক যেমনটি আপনার ব্লগ পোস্টের শিরোনামগুলির উপর নজর রাখতে অনেক সময় ব্যয় করা উচিত, আপনার একটি ভিডিও শিরোনামকে ফোকাস করার জন্য ঠিক তেমন সময় ব্যয় করা উচিত।

সুতরাং, কিভাবে আপনি আপনার ভিডিও জন্য একটি ভাল শিরোনাম তৈরি করবেন?
যদি আপনার ভিডিওটি একটি নির্দিষ্ট কীওয়ার্ডের উপর ভিত্তি করে হয়, তাহলে এটির শিরোনামটি এই শব্দটি প্রতিফলিত করবে। যখন আপনি এটি করেন, তখন আপনার ভিডিওতে ক্লিক করার সম্ভাবনা বাড়বে। যদি ভিডিওর শিরোনামটি তারা যা খোঁজ করছে তার সাথে মিলে যায়, তবে তারা অনুমান করবে যে ভিডিওটি সেই বিষয়টির সাথে সম্পর্কযুক্ত যা তারা খুজছে। এর মানে এই নয় যে আপনি আপনার শিরোনাম হাস্যকর ভাবে তৈরি করবেন। ‘কীওয়ার্ড স্টাফিং’ আপনাকে সাহায্য করার চেয়ে অনেক বেশি ক্ষতি করতে পারে।

একটি কোলন ব্যবহার করে সমস্যা সমাধান করতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, আগে আমরা কীওয়ার্ড চিহ্নিত করেছি – ‘সিম্পেল ড্রয়িং টেকনিক’। এ বিষয়ে একটি ভিডিও হলে, আমরা শিরোনামটি লিখতে পারি- “সিম্পেল ড্রয়িং টেকনিক ৫ টিপ্স ফর দ্যাট উইল মেক ড্রয়িং ইজিয়ার’।

ছবি/থাম্বনেইলের ক্ষেত্রে, বেশ কয়েকটি পদ্ধতি রয়েছে যা আপনি নিতে পারেন।

প্রথমটি, ভিডিওটির বিষয় সম্পর্কে একটি স্পষ্ট চিত্র প্রদর্শন করা।  উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনি ল্যাপটপ বিষয়ে কথা বলেন, তাহলে আপনি ল্যাপটপের একটি স্পষ্ট চিত্র দেখান।

এটার মত –

বিকল্পভাবে, আপনি যে ভিডিওটি নিয়েছেন তার সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করার জন্য একজন ব্যক্তির ছবি দেখান।

এই উদাহরণ মত –

যাইহোক, ভিডিও থাম্বনেল তৈরির শক্তিশালী উপায়গুলির একটি হল সেগুলি এডিট করা এবং তাতে কিছু লেখা সংযোজন করা।

এর একটি উদাহরণ এখানে।

শুধু কিছু টেক্সট যোগ করা নয়, আপনি থাম্বনেল চিত্রটি ব্যাপকভাবে এডিট করতে পারেন যাতে এটি স্পষ্টভাবে ফুটে উঠে।

আপনি যদি এই ধরনের থাম্বনেল তৈরি করতে চান, তাহলে আপনাকে এই নিয়মগুলি অনুসরণ করতে হবে

আপনি ক্যানভা প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে একটি থাম্বনেল তৈরি করতে পারেন। প্রথমে, সাইটে যান এবং সদস্য হোন, সদস্য হওয়ার পর, আপনাকে অনেক অপশন দেয়া হবে যা দিয়ে ছবি তৈরি করতে পারবেন। আপনি যদি ক্যানভা ব্যবহার করতে চান বা তা সম্পর্কে আরও জানতে চান, তাহলে তাদের প্রাথমিক সেটআপ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে গেলে সহায়ক হতে পারে। সেখানে আপনি ‘কাস্টম ডাইমেনশন’ অপশন ব্যবহার করতে পারবেন। ক্যানভা-এর ইউটিউব থাম্বনেলগুলির জন্য একটি পূর্বনির্ধারিত অপশন নেই, তাই পূর্বে প্রদত্ত রেজোলিউশনের নির্দেশাবলী ব্যবহার করতে হবে।

এর মানে ছবিগুলি ১২৮০px × ৭২০px হতে হবে। উল্লিখিত মাত্রা লিখুন এবং তারপর ‘ডিজাইন!’ বোতামে ক্লিক করুন।

আপনার থাম্বনেল ইমেজ তৈরি করার অপশন থাকবে।

এখানে পরীক্ষা করার জন্য অনেক কিছু আছে এবং জিনিসগুলি কীভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে ধারণা পেতে আপনাকে কয়েকটি বিকল্প পরীক্ষা করতে হবে। যদি আপনার নিজের কিছু ছবি থাকে, তা ক্যানভাতে আপলোড করতে পারেন এবং তারপর তাদের উপর কিছু টেক্সট যোগ করতে পারেন। আমি শুরু থেকে প্রাথমিকভাবে একটি থাম্বনেল তৈরির অপশন নিয়েছি। স্পষ্টতই আপনি এর তুলনায় ভালো কিছু তৈরি করতে পারবেন।

যদি আপনি ভিডিওর জন্য একটি কাস্টম থাম্বনেল আপলোড করতে চান, তাহলে স্বাভাবিক আপলোড প্রক্রিয়াটি দেখুন।

এখন আপনার একটি কাস্টম থাম্বনেল থাকবে যা আপনার ইউটিউব প্ল্যাটফর্মে প্রদর্শিত হবে।

আপনার ইউটিউব ভিডিওগুলির জন্য একটি বিবরণ তৈরির ক্ষেত্রে, আপনি প্রচুর ফোকাস করতে পারেন এবং এটি নিজেই একটি সম্পূর্ণ পোস্ট হতে পারে।আপনার মনে রাখা দরকার যে এখানে আপনার অনেক জায়গা আছে এবং ইউটিউব আপনার কন্টেন্ট র‍্যাঙ্ক করার জন্য আপনি কী বিবরণ দিচ্ছেন তা ব্যবহার করে। মেটা ট্যাগ এবং এর গুরুত্ব উপেক্ষা করবেন না। বিবরণের প্রথম কিছু লাইন সহজভাবে লেখা উচিত যাতে তারা অনুসন্ধান ফলাফলগুলিতে পড়তে সহজ হয়।

এখানে একটি ভাল উদাহরণঃ

এই বিভাগে, আপনি আপনার শিরোনামে ব্যবহৃত কিছু কীওয়ার্ডগুলি ব্যবহার করতে পারেন। এটি আপনার ভিডিওর র‍্যাঙ্কিং বাড়াবে। যখন কেউ আপনার ভিডিওতে ক্লিক করে তখন তাদের ‘সো মোর’ লেখার উপর ক্লিক করার অপশন রয়েছে। এটি বিবরণটি প্রসারিত করবে। আপনি এই ‘চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন’ লিঙ্ক যোগ করতে এই স্থানটি ব্যবহার করতে পারেন।

যদি আপনি এটি করতে চান, তাহলে নিম্নলিখিত লিঙ্কে ফরম্যাট ব্যবহার করুন –

https://www.youtube.com/subscription_center?add_user=
‘=’ পরে আপনার চ্যানেলের নামটি লিখুন।
সুতরাং, কিস্মেট্রিক্স জন্য এটি হবে –
https://www.youtube.com/subscription_center?add_user=Kissmetrics

যখন লোকেরা এই লিঙ্কে ক্লিক করে, তখন আপনার চ্যানেল পেজে চলে যাবে, যেখানে একটি সাবস্ক্রাইব বক্স পপ-আপ হবে। বিবরণে, আপনি আপনার অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল, গুরুত্বপূর্ণ লিংক এবং এমনকি আপনার কন্টেন্ট পোস্টিং সময়সূচী এবং অন্যান্য তথ্যও দিতে পারেন।

আপনি আপনার ভিডিওতে আলোচিত বিষয়গুলির বর্ণনাও করতে পারেন, যেমন –

মনে রাখবেন – ৬৫% মানুষ ভিডিও দেখে বিক্রেতার ওয়েবসাইটে যান। আপনার বিবরণে একটি লিঙ্ক দিয়ে নিশ্চিত করুন যে লোকেদের জন্য আপনার সাইটের সাথে যোগাযোগ করা এবং সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে আপনাকে খুঁজে পাওয়া সহজ হবে।

এটি গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি আপনার ভিডিও্তে কিছু ট্যাগ দিন। এটি ইউটিউব অনুসন্ধান ইঞ্জিনে প্রদর্শিত আপনার ভিডিওর সম্ভাবনাকে উন্নত করতে সহায়তা করবে।

এখানে বিভ্রান্তিকর কিছু ব্যবহার করা উচিত হবে না। আপনার ভিডিওটি বর্ণনা করে কিছু নির্দিষ্ট ট্যাগ ব্যবহার করুন।

এনোটেশন ব্যবহার করুন

গ্রাহক হার বৃদ্ধির অন্য আরেকটি কার্যকর পদ্ধতি হলো ‘এনোটেশন’। প্ল্যাটফর্মে আপনি সম্ভবত কোন না কোন সময়ে ইউটিউব ভিডিও এনোটেশনগুলি দেখেছেন। এগুলো হল ছোট বক্সগুলো যা পুরো ভিডিও জুড়ে থাকে।

জেমস ওএডমোর এই ভিডিও এর মত –

যখন লোকেরা সেই এনোটেশনটি ক্লিক করে, তখন নিম্নলিখিত পেজে নিয়ে যাওয়া হয়।

এটি আপনার মিডিয়া মার্কেটিংএর মাধ্যমে গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধির একটি অবিশ্বাস্যভাবে কার্যকর উপায়। আসুন দেখি কিভাবে আপনি নিজের ভিডিওর জন্য একই জিনিস করতে পারেন। ইউটিউব-এর ‘ক্রিয়েটরস স্টুডিও’ বিভাগে যান। সেখানে, ‘ভিডিও ম্যানেজার’ বিভাগে ক্লিক করুন।

আপনি এনেটোনেস যোগ করতে চান এমন ভিডিওটি সিলেক্ট করুন।

তারপর, ‘এডিট’ ড্রপ ডাউন মেনু থেকে, ‘ এনোটেশন’ বাছাই করুন।

তারপর আপনি নিম্নলিখিত লেআউট দেখতে পাবেন।

একটি এনোটেশন যোগ করতে, ‘+ এড এনোটেশন’ বোতামে ক্লিক করুন।

‘শিরোনাম’ অপশন ছাড়া, তালিকাভুক্ত সমস্ত পছন্দগুলি আপনাকে একটি লিঙ্ক তৈরি করতে অনুমতি দেবে। তাই, আপনি সময় নিয়ে পরীক্ষা করুন কোন এনোটেশন আপনার পক্ষে সেরা কাজ করে। আমি ‘স্পিচ বাবল’ বিকল্পটি নির্বাচন করতে যাচ্ছি, যেহেতু এর সজ্জা আকর্ষণীয়। আপনি লেখার বাক্সে কিছু পাঠাতে চান। এটিই আপনার এনোটেশন টেক্সট হবে।

টেক্সট এবং স্পিচ বাবলের বর্ণনায়, আপনি বিভিন্ন পরীক্ষা করতে সক্ষম হবেন। স্পষ্টতই, আপনি চান এনোটেশন ফুটে উঠুক। এটি নির্ভর করবে ভিডিওর রং-এর উপর। আপনার এনোটেশনের জন্য রং বাছাই সম্পর্কে ইউটিউব-এর ভাষ্য।

কারণ আমার ভিডিওতে একটি কালো পটভূমি রয়েছে, আমি নিম্নলিখিত সেটআপটি নির্বাচন করি, কারণ এটি ভাল কন্ট্রাস্ট প্রকাশ করে।

আপনি কিছু লেখা যোগ করেছেন এবং রং সমন্বয় করেছেন, এখন আপনি সিদ্ধান্ত নেবেন কখন এনোটেশন প্রদর্শিত হবে। বাকি জিনিসগুলির মত আপনি যাচাই করে নিবেন। যুক্তিযুক্তভাবে, আপনার উচিত হবে ভিডিওর শেষে এনোটেশন লিখা যখন আপনি আপনার চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে আহ্বান করবেন।

এনোটেশনের সময়সীমা সম্পর্কে ইউটিউব বলছে:

অবশ্যই, যদি আপনি ভিডিওটির শেষের দিকে আপনার টীকাটি রাখেন, আপনি ৫-৭ সেকেন্ডের বেশি টীকা প্রদর্শন করতে সক্ষম হবেন। কারণ আপনি আপনার অধিকার অর্জন করেছেন, আপনার বিষয়বস্তু ভাল ছিল – এটি জানার কারণ তারা শেষ পর্যন্ত আটকে ছিল ভিডিওতে। কোথায় এনোটেশন প্রদর্শিত হবে তা আপনার ভিডিওর উপর নির্ভর করবে। উদাহরণস্বরূপ, কিছু ভিডিওতে আপনি লক্ষ্য করবেন যে লোকেরা যখন সাবস্ক্রাইব করার জন্য লোকেদের জিজ্ঞাসা করে, তখন ভিডিওর নির্দিষ্ট অংশে ইশারা করা হয়, বা উল্লেখ করা হয়। তার নির্দেশ বা ইশারা যেখানে সাবস্ক্রাইব বাক্স অবস্থিত হয় সেখানে।

আপনার শ্রোতা সঙ্গে যোগাযোগ করুনঃ

গ্রাহক সংখ্যা বাড়ানোর আরেকটি উপায় হল আপনার দর্শকদের আকর্ষন করা। এটি করার অনেক উপায় আছে।

প্রথমে আপনার ভিডিওগুলিতে আপনার যেকোনো মন্তব্যগুলির প্রতিক্রিয়া জানাতে হবে। এটি মানুষকে মনে করাবে যে তাদের মতামতকে মূল্যায়ন করা হচ্ছে। প্লাস, আপনি এই প্রচেষ্টার মাধ্যমে সবাইকে সাবস্ক্রাইব করতে উৎসাহী করতে পারেন। যদি আপনার ইউটিউব ভিডিওগুলিতে কোনও নেতিবাচক মন্তব্য থাকে, তাহলে আপনি তাদের অবিলম্বে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দিন। এটি অবশেষে গ্রাহকদের বৃদ্ধি করতে অবদান রাখবে কারণ মানুষ আপনার ভিডিওগুলিতে এই মিথস্ক্রিয়াটি দেখতে পাবে এবং আপনি যে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেন তার প্রশংসা করবে।

দ্বিতীয় বিকল্প হল একটি প্রশ্ন উত্তর পর্ব এবং একটি অধিবেশন হোস্ট। আপনি গুগল হ্যঙ্গাউটস ব্যবহার করে এটি করতে পারেন এমনকি দর্শকদের মন্তব্য বিভাগে তাদের প্রশ্ন পোস্ট করার জন্য ভিডিওর শেষে বলতে পারেন।

তারপর, পরবর্তী ভিডিওতে আপনি আপনার প্রশ্নাবলীর মাধ্যমে কিছু সময় ব্যয় করতে পারেন।

আরেকটি উপায় যা দিয়ে দর্শকদের সাথে সংযুক্ত হতে পারেন যে তারা যা চায় তার উপর ভিডিও তৈরি করা। উদাহরণস্বরূপ, আপনি আপনার শ্রোতাদের জিজ্ঞেস করতে পারেন যে তারা কি চায় আপনার দ্বারা। আপনি তারপর একটি ভিউয়ারের পরামর্শের উপর ভিত্তি করে একটি ভিডিও তৈরি করতে পারেন এবং আপনার তৈরি করা ভিডিওতে তাদের কল করতে পারেন।

কিছু কলাবোরেশন ভিডিও বিবেচনা করুন

গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধির ক্ষেত্রে আপনার কাছে কিছু কলাবোরেশন করার অপশন রয়েছে। কলাবোরেশন ব্যাপকভাবে আপনার ভিডিও মার্কেটিং প্রচেষ্টাকে বাড়িয়ে তুলতে পারে। আপনি যদি সঠিক পথে যান তবে আপনি ১৮% কোম্পানীর সাথে যুক্ত হতে পারেন যেগুলি তাদের ভিডিও মার্কেটিংকে ‘খুব সফল’ বলে মনে করে। এই সম্পর্কে যাওয়ার সর্বোত্তম উপায় হল আপনার কাছে অনুরূপ দর্শকদের চ্যানেলগুলি খুঁজে পাওয়া। তারপর একটি ইভেন্ট ব্যবস্থা করুন যেখানে উভয় পারস্পরিক মিথস্ক্রিয়া থেকে উপকার করতে পারেন। যখন আপনি একটি কলাবোরেশন করবেন, এটি গুরুত্বপূর্ণ যে আপনি আপনার চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে উৎসাহিত করেন।

বিকল্পভাবে, আপনি আপনার চ্যানেলের কিছু সাক্ষাত্কার নেয়া বিবেচনা করতে পারেন। আপনি আপনার নিশ-এর মধ্যে শীর্ষ কিছু মানুষের সাক্ষাতকার নেয়ার উপায় খুঁজে পেতে পারেন, যা দর্শকদের আকর্ষণ করতে সক্ষম হবে। আপনার চ্যানেলের জন্যে মূল্যবান ব্যক্তিদের ইমেল করুন এবং তাদের জিজ্ঞাসা করুন তারা অতিথি হওয়ার জন্য ইচ্ছুক কিনা। যদি তারা না বলে, তাহলে সম্মানজনকভাবে জিজ্ঞাসা করুন যে সাবস্ক্রাইবার বাড়লে তারা শো করবেন কিনা। দেখুন তারা কোন বলপার্ক ফিগারে খুশি হবেন। মনে রাখবেন, আপনি অবাধ্য হতে চান না, তবে ভবিষ্যতে একটি সম্ভাব্য উপায়ের জন্য জিজ্ঞাসা করাতে ভুল কিছুই নেই।

ইউটিউব বিজ্ঞাপন ব্যবহার করুন

আমি ইতিমধ্যে এখানে ইউটিউব বিজ্ঞাপন ব্যবহার সম্পর্কে ব্যাপকভাবে কথা বলেছি। ২০১৪ সালে ইউটিউব এর বিজ্ঞাপন রাজস্ব ১.১৩ বিলিয়ন ডলার ছিল – মানুষ ভাল কারণেই সেখানে টাকা খরচ করছে। এবং, সকলে এটা দেখছে। কমস্কোর দেখায় যে প্রতি মাসে অনলাইন ভিডিও বিজ্ঞাপনগুলি গড় ১৬ মিনিট এবং ৪৯ সেকেন্ড করে মানুষেরা দেখে। এটি কাজ করার জন্য, ভিডিও সম্পর্কিত কীওয়ার্ড ব্যবহার করতে চাইতে পারেন। এটি নিশ্চিত করবে যে যখনই লোকেরা সেই শব্দটি লিখবে তখন আপনার ভিডিওগুলি অনুসন্ধান ফলাফলে শীর্ষে উপস্থিত হবে।

আপনি যদি আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে অর্থ উপার্জন করার পরিকল্পনা করেন তবে এটি একটি কার্যকর বিকল্প হতে পারে। যাদের একটি পরিকল্পনা আছে তারা সেই ৫৪% বিটুবি মারকেটিয়ারদের অন্তর্গত যারা প্রোডাক্ট লঞ্ছ-এর জন্যে ইউটিউব ব্যবহার করেন।

উপসংহার

ইউটিউব পুরোটাই ভিডিও নির্ভর হওয়ার কারণে এটাকে একটু ভীতিজনক বলে মনে হতে পারে। তবে এর বিশাল ইউজার বেসের সাথে, এটি যে বিশাল সম্ভাব্যতার প্রতিনিধিত্ব করে তা উপেক্ষা করাটা বোকামি হবে। ইউটিউবের ধারাবাহিক সাফল্যের চাবিকাঠিগুলির মধ্যে অন্যতম হচ্ছে প্রচুর গ্রাহক সংবলিত চ্যানেল্গুলি। গ্রাহক সংখ্যা বাড়ানোর জন্য আপনাকে বিভিন্ন মিডিয়া মার্কেটিং কৌশল প্রয়োগ করতে হবে।

মূল হল সব সময়ে ব্যতিক্রমী সামগ্রী তৈরি করা যা মানুষকে এতটাই প্রভাবিত করবে যে তারা আপনার কাছ থেকে আবার শুনতে চাবে। আপনার আকর্ষণীয় থাম্বনেল এবং অবিশ্বাস্য শিরোনাম তৈরি করতে হবে যা অরগানিক সোশ্যাল নেটওয়ার্কে শেয়ার নিশ্চিত করে আপনার ভিডিওর ভিউ বাড়িয়ে দিবে। যখন লোকেরা অবশেষে আপনার ভিডিওতে ক্লিক করে তখন আপনাকে এটি নিশ্চিত করতে হবে যে তারা সাবস্ক্রাইব করার অপশনটি সম্পর্কে সচেতন। এর মানে হল যে আপনার ভিডিওগুলির শেষে সাবস্ক্রাইব করার অপশনটি উল্লেখ করে সক্রিয়তার সাথে স্মরণ করিয়ে দেওয়ার জন্য এনোটেশন ব্যবহার করতে হবে।

যাইহোক, একবার যদি এর মূল বুঝে নিতে পারেন, তাহলে কলাবোরেশন এবং ইউটিউব বিজ্ঞাপন নিয়ে পরীক্ষা করতে পারবেন। আপনি যদি যথেষ্ট পরিশ্রম করে থাকেন, তবে ভবিষ্যতে ইউটিউব আপনার জন্য যে অপার সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিবে তা বলা বাহুল্য।

সুতরাং আপনাকে যা করতে হবে তা হল এখনি শুরু করতে হবে। আপনার মতামত/পরামর্শ/জিজ্ঞাসা নিচের কমেন্টে জানান।

Leave a Comment